বাংলাদেশ আজ পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে আছে। রানা তসলিম উদ্দিন

বাংলাদেশ আজ পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে আছে। রানা তসলিম উদ্দিন

১৯৭১ সালে যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশের জন্য যে সময় শিল্পী জর্জ হ্যারিসন গান গেয়ে অর্থ তহবিল সংগ্রহ করছিলেন সে সময় পর্তুগালের বর্তমান প্রধান মন্ত্রী আন্তনিও কোস্টা আমাদের দেশের জনগনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে একটি সিডি কিনেছিলেন। একত্রে লাঞ্চের সময় একান্ত আলাপে তিনি একথা বলেছেন।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ লিসবনের কেপ ভেরদি এসোসিয়েশনের দেয়া লাঞ্চে অতিথি হিসেবে প্রধান মন্ত্রীর পাশে আমাকে আসন দিয়ে সন্মানিত করেছেন এসোসিয়েশনের সভাপতি ফিলিপ নাসিমেন্তো। সেই সুবাদে প্রায় দেড় ঘন্টা প্রধান মন্ত্রীর সাথে বসার সুযোগ পেয়ে একান্তভাবে তাকে বাংলাদেশ ভিজিট করার আমন্ত্রন জানালে তিনি স্বহাস্যে বলেন, “দাওয়াত পেলে অবশ্যই যাবো। আমার বাংলাদেশ ভিজিট করার আগ্রহ আছে। ১৯৭১ এর বাংলাদেশ আর আজকের বাংলাদেশের পার্থক্য বুঝাতে গিয়ে আমরা কিভাবে মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হলাম, কিভাবে বাংলাদেশ আজ পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে আছে, কিভাবে আমরা ১০ লাখের বেশী রিফিউজি রোহিংগাদের আশ্রয় দিয়েছি, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক উন্নতি সাধিত হলো কিভাবে তার বিশদ ব্যাখ্যা দিয়েছি। আমার কথা গুলো তিনি তন্ময় হয়ে মনযোগ দিয়ে শুনেন ও অনেক প্রশংসা করে বলেন, “পর্তুগালেও আপনাদের কমিউনিটির যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।”

আর তখনই আমাদের কমিউনিটির গত ত্রিশ বছরের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ব্যাখ্যা করি। পর্তুগালের অর্থনীতিতে আমাদের অবদানের কথা বলি, পর্তুগালে আমাদের জনসংখ্যার খতিয়ান তুলে ধরি। আমাদের কমিউনিটির বিভিন্ন অসুবিধার কথাগুলো বলি, নির্মাণাধীন মসজিদ নিয়ে কথা বললে তিনি তৎক্ষণাৎ লিসবনের মেয়রকে ফোন করে সর্বশেষ আপডেট জানতে চান। আমাদের ভোটারদের সংখ্যা নিয়েও কথা বলি।

তিনি তাঁর প্রায় ২০ মিনিটের বক্তব্যে পর্তুগালের ইমিগ্রান্টদের নিয়ে কথা বলেন, বর্নবাদ নিয়ে কথা বলতে যেয়ে তিনি বলেন, “সারা দুনিয়া বর্নবাদের বিরুদ্ধে কথা বলে, বিবৃতি দেয়, কিন্তু আমি কাজ করে দেখাই, আমার শাসন আমলে নিগ্রোদের পার্লামেন্টে ঠাই দিয়েছি, জিপ্সিদের পার্লামেন্টে এনেছি। শারীরিক ডিসেবলদের কেবিনেটে রেখেছি। যা পর্তুগালে কখনো ছিলনা। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, বিভিন্ন দেশের ইমিগ্রান্টদের কথা বলতে গিয়ে তিনি প্রথমেই বাংলাদেশের নাম উচ্চারন করেন, অথচ এখানে বিশ্বের প্রায় ১২০টি দেশের মানুষ বসবাস করেন। ‍‍‍

আসন্ন ৬ অক্টোবর ২০১৯ নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারী ১০/১২ জন প্রার্থী, দুই জন মিনিস্টার, সোস্যালিস্ট পার্টির উচ্চ স্তরের নেতৃবৃন্দ, পর্তুগালের বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিগন ও কেপ ভেরদি এসোসিয়েশনের সদস্যগন সহ পর্তুগালের ৪/৫ টি জাতীয় টিভি চ্যানেল ও অনেকগুলো জাতীয় পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দরা উক্ত লাঞ্চ পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন। আমাদের বাংলাদেশী কমিউনিটির মুখপাত্র হয়ে, বাংলাদেশ ও এখানকার মানুষের কথা বলতে পেরে, নিজ দেশের সুনাম আরেক দেশের প্রধান মন্ত্রীর কাছে বলতে পারার জন্য আমাদের কমিউনিটির কাছে, প্রধানমন্ত্রী জনাব আন্তনিও কোস্টার কাছে, সর্বোপরি কেপ ভেরদি এসোসিয়েশনের কাছে আমার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমার বিশ্বাস, অদুর ভবিশ্যতে আমাদের এই বাংলাদেশী কমিউনিটি পর্তুগালে আরো সুনামের সাথে অতিবাহিত হয়ে বাংলাদেশের নাম পর্তুগালে সমুজ্বল করবে। একদিন হয়ত আমি থাকবো না কিন্তু যে রাস্তা তৈরী করে যাচ্ছি, ইনশাআল্লাহ আগামী প্রজন্ম এই রাস্তায় চলার পথ সুগম হবে বলে আশা রাখি।

আন্তনিও কোস্টার জয় হোক, সোশ্যালিস্ট পার্টির জয় হোক, পর্তুগালের জয় হোক। পর্তুগালের সাথে বাংলাদেশ কমিউনিটির সম্পর্কের আরও উন্নয়ন হোক এই কামনা করছি। সংগ্রহীত 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




পর্তুগাল বাংলানিউজ

প্রধান উপদেষ্টা: কাজল আহমেদ

পরিচালক: মোঃ কামাল হোসেন, মোঃ জহিরুল ইসলাম

প্রকাশক: মোঃ এনামুল হক

যোগাযোগ করুন

E-mail : portugalbanglanews24@gmail.com

Portugalbanglanews.com 2019
Developed by RKR BD