পর্তুগালের জাতীয় নির্বাচনে সোশ্যালিস্ট পার্টিকে কেন ভোট দিবো? রানা তসলিম উদ্দিন

পর্তুগালের জাতীয় নির্বাচনে সোশ্যালিস্ট পার্টিকে কেন ভোট দিবো? রানা তসলিম উদ্দিন

কমিনিটি ব্যক্তিত্ব ও সমাজসেবক জনাব রানা তসলিম উদ্দিন তার ফেইসবুক স্টেটাসে উল্লেখ্য করেন আমরা পর্তুগালের জাতীয় নির্বাচনে সোশ্যালিস্ট পার্টিকে কেন ভোট দিবো? তার লিখাটি তুলে ধরা হলো-

নব্বই এর দশক থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশী পর্তুগালে এসেছেন।আনুমানিক ২৫ হাজার বাংলাদেশী পর্তুগালের নাগরিকত্ব অর্জন করে ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন।শুধু যদি ইউরোপের কথা বলি হলে বলতে হবে, বাংলাদেশের প্রায় ২৩ হাজার পর্তুগীজ পাসপোর্টধারী গ্রেট ব্রিটেন, সুইজারল্যান্ড, ফ্রাঞ্চ, জার্মানি, বেলজিয়াম, হল্যান্ড, স্পেনসহ বিভিন্ন দেশে বসবাস করেন।

আপনি একজন ইউরোপিয়ান নাগরিক। আপনার মতামত দেয়ার অধিকার আছে। তাই আপনি অবশ্যই ভোট দিবেন। এটি আপনার নাগরিক অধিকার। আপনার একটি ভোটে একটি জাতি উপকৃত হতে পারবে। তাই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে যারা অবস্থান করছেন, তাদের পর্তুগাল সোশ্যালিস্ট পার্টিকে আপনার মূল্যবান ভোট দেয়ার জন্য অনুরোধ করবো।

আমরা কেন পর্তুগাল সোশ্যালিস্ট পার্টির আন্তনিয় কোস্টাকে ভোট দিবো? বাঙ্গালী সমাজে তথা বিদেশীদের পর্তুগাল সোশ্যালিস্ট পার্টি কি করেছেন?

এই প্রশ্নের উত্তর হিসেবে যা বলা যায় তা হলো-

  •  ১৯৯৩, ১৯৯৬, ২০০১, ২০০৪, ২০০৭, ২০০৯ হতে আজ পর্যন্ত যতবার অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ করার আইন হয়েছে, তা একমাত্র সোশ্যালিস্ট পার্টির মাধ্যমেই হয়েছে।
  • সোশ্যালিস্ট পার্টি আর্টিকেল ৮৮ পাশ করে, তার ফল স্বরূপ আজো এদেশে ইমিগ্রেশন চালু আছে।
  • ছয় বছর কোন অভিবাসী বৈধভাবে এদেশে থাকলে, জাতীয়তার জন্য আবেদন করতে পারবে। এই আইন সোশ্যালিস্ট পার্টি প্রনয়ন করেছিল এবং পরবর্তীতে তা মেয়াদ কমিয়ে ৫ বছরে নিয়ে এসেছে সোশ্যালিস্ট পার্টির শাসন আমলেই।
  • লিসবনে বাঙ্গালী সমাজকে সর্বাঙ্গীণ সাহায্য সোশ্যালিস্ট পার্টি করেছে।
  • আন্থনিয় কোস্টা যখন লিসবনের মেয়র ছিলেন, তিনিই বাংলাদেশিদের জন্য একটি মসজিদ কমপ্লেক্স করার ঘোষণা দেন এবং জায়গা নির্ধারণ করেন। তার নির্মাণ খরচও দিবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। যা আমাদের বাংলা জোনে হবে, শুধুই সময়ের ব্যাবধান। তিনিই এখন দ্বিতীয় দফা সোশ্যালিস্ট পার্টির পক্ষ থেকে পর্তুগালের প্রাইম মিনিস্টার পদপ্রার্থী।
  • সোশ্যালিস্ট পার্টির মাধ্যমেই ২০১৪ সালে আমাদের জাতীয় শহীদ মিনার স্থাপিত হয়, যা পর্তুগালের আপনারা সকলে জানেন।
  • সোশ্যালিস্ট পার্টির নেতৃবৃন্দদের অনুমতির মাধ্যমেই ২০১১ থেকে প্রতি বছর আমরা খোলা মাঠে ঈদের জামাত আদায় করতে পারি, যা পর্তুগালের ইতিহাসে গত এক হাজার বছরে কেউ করতে পারেনি। একমাত্র সোশ্যালিস্ট পার্টিই আমাদের এই ইসলামী ধর্মীয় উৎসব করার ব্যবস্থা করে দিয়েছে।
  • ২০১০ থেকে যে সকল অবৈধ অভিবাসী সেফ এর অনিয়মের কারণে অবৈধভাবে ছিলেন, ২০১৫ তে আন্থনিয় কোস্টা প্রধানমন্ত্রী হলে আস্তে আস্তে সকলকে বৈধ হওয়ার সুযোগ করে দেন।এছাড়াও আরও কত কি! সেগুলো আর লেখার অপেক্ষা রাখে না। তাই আসুন, আমরা যারা বাংলাদেশী পর্তুগালের নাগরিক আছি তারা ভোটে অংশগ্রহণ করি। আর সোশ্যালিস্ট পার্টিকে ভোট দেই, ভোট দেই আন্তনিয় কোস্টাকে। আন্থনিয় কোস্টা আমাদের বন্ধু, আন্থনিয় কোস্টা বিদেশীদের বন্ধু। তিনি গত দশ বছরে মেয়র থাকাকালীন পুরো লিসবনের চেহারা পাল্টে দিয়েছেন। দেশ শাসনে যিনি দেখিয়েছেন পারদর্শীতা।গত ৪ বছরে তিনি পর্তুগালে ৩৫০ হাজার মানুষকে চাকুরী দিয়ে বেকার সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছেন। যারা পর্তুগালে আছেন বা ছিলেন তারা জানেন, তিনি গত ৪ বছরে পর্তুগালকে কিভাবে পরিচালিত করে অর্থনৈতিক উন্নয়ন সাধন করেছেন। বলা যেতে পারে, পর্তুগাল আজ বিশ্বের মানুষের কাছে তথা ইউরোপে একটি সন্মানিত রাষ্ট্রের আসনে উন্নীত হয়েছে আন্তনিয় কোস্টার নিরলস প্রচেষ্টায়। 

    আগামী ৫ ও ৬ অক্টোবর প্রত্যেক দেশের দূতাবাসে ভোট গ্রহন করা হবে।দূতাবাসে সরাসরি উপস্থিত হয়ে ভোট দিতে পারবেন অথবা ডাকে চিঠির মাধ্যমে আপনার কাছে পাঠানো ব্যালট নির্দিষ্ট ঘরে ক্রস চিহ্ন দিয়ে ফেরত পাঠাতে পারেন। তাই আসুন আমরা আমাদের ভোট মুষ্টিবদ্ধ হাত মার্কায় পর্তুগাল সোশ্যালিস্ট পার্টির আন্থনিয় কোস্টাকে দিয়ে আমদের অধিকারগুলো আদায় করি। দেখা হবে ৬ তারিখে, সোশ্যালিস্ট পার্টির জয়ের মাধ্যমে ইনশাআল্লাহ। সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

    সোশ্যালিস্ট পার্টি দীর্ঘজীবী হোক!

  • রানা তসলিম উদ্দিন, কাউন্সিলর সান্তা মারিয়া মাইওর লিসবন, পর্তুগাল

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




পর্তুগাল বাংলানিউজ

প্রধান উপদেষ্টা: কাজল আহমেদ

পরিচালক: মোঃ কামাল হোসেন, মোঃ জহিরুল ইসলাম

প্রকাশক: মোঃ এনামুল হক

যোগাযোগ করুন

E-mail : portugalbanglanews24@gmail.com

Portugalbanglanews.com 2019
Developed by RKR BD