ইসলামের দৃষ্টিতে ডেঙ্গুসহ সকল প্রকার মহামারী প্রতিরোধে মানব জাতির করণীয়

ইসলামের দৃষ্টিতে ডেঙ্গুসহ সকল প্রকার মহামারী প্রতিরোধে মানব জাতির করণীয়

আবু রাশেদ সিদ্দিক

সাম্প্রতিক কালে প্রাকৃতিকভাবে মানব জাতির জন্য ভয়াবহ আতঙ্কের আরেক নাম ডেঙ্গু ভাইরাস, কারণ- বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষনামতে অবহেলিত গ্রীষ্মমণ্ডলীয় বিশটি রোগের মধ্যে ডেঙ্গু হলো অন্যতম। উইকিপিডিয়ার তথ্যমতে প্রতি বছর প্রায় পাঁচ থেকে পঞ্চাশ কোটি মানুষ ডেঙ্গুতে সংক্রমিত হয় এবং তাদের মাঝে দশ থেকে বিশ হাজারের মতো মানুষ মারা যায়। 

ইসলামের দৃষ্টিতে ডেঙ্গু হচ্ছে মানব জাতির জন্য প্রাকৃতিক বিপর্যয়। কারণ- মানব জাতি যখন তাদের সঠিক অবস্থান থেকে সরে গিয়ে মহান মালিক সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর অবাধ্য জীবন-যাপনে অভ্যস্থ হয়, তখন প্রকৃতির অন্য সকল সৃষ্টিরাজী মানব জাতির প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে তারা তাদের ভয়াবহ তান্ডব চালিয়ে মানব জীবনকে অতিষ্ট করে তুলে। নিসন্দেহ মহান আল্লাহ সর্বজ্ঞানী। তাঁর ইচ্ছা এবং তিনি যা কিছু সংঘটিত করতে চান, সেসকল বিষয়ে তিনিই সম্যক অবগত। তিনি সর্বাধিক জ্ঞানী এবং সর্বাধিক অবহিত তাঁর ব্যবস্থাপনা ও কৌশল সম্পর্কে। মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদেরকে সতর্ক করার জন্য বিভিন্ন প্রকারের নিদর্শন সৃষ্টি করেন এবং কখনো কখনো তা তাঁর বান্দার উপর প্রেরণ করেন, যাতে করে তারা মহান আল্লাহ কর্তৃক তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন ও ভীত হয়। বান্দারা মহান আল্লাহর সাথে যেসব শিরকে লিপ্ত হয় বা অসৌজন্যমূলক আচরণ করে এবং তিনি যা করতে নিষেধ করেছেন, তা থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি এই নিদর্শনসমূহ প্রেরণ করেন, যাতে করে তারা তাদের ভুল বুঝতে পারে, তাদের বোধোদয় হয় এবং তারা সার্বভৌম ক্ষমতার একমাত্র মালিক তাদের একমাত্র রব আল্লাহর দিকেই একনিষ্ঠভাবে প্রত্যাবর্তন করে।
মহান আল্লাহ বলেন- ‘(আসলে) আমি সতর্ক করার জন্যই (তাদের কাছে আযাবের) নিদর্শন পাঠাই।’ {সূরা বনি ইসরাইল, আয়াত-৫৯}।
ইসলামের দৃষ্টিতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সামাজিক সচেতনতার পাশাপাশি মৌলিকভাবে সকল মানুষেরই উচিত মহান মালিকের অবাধ্য পথ (শিরক ও কুফরের পথ) পরিত্যাগ করে জীবনের সকল ক্ষেত্রে মহান আল্লাহকেই একমাত্র রব্ব (সার্বভৌম ক্ষমতার একমাত্র মালিক, আইন বিধানদাতা ও নিরংকুশ শাসনকর্তা মেনে) রব্বের দেয়া বিধানের ভিত্তিতে নিজ, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন এবং পরিচালনা করা যা ঈমানী ও নৈতিক দায়িত্বের অন্তর্ভূক্ত। সেই সাথে সামাজিকভাবে ডেঙ্গু প্রতিরোধে যা করণীয়- ডেঙ্গু ভাইরাস বহনকারী এডিস মশার বিস্তার রোধ এবং এই মশা যেন কামড়াতে না পারে, তার ব্যবস্থা করা। বিশেষ করে বাড়ির আশপাশের ঝোপঝাড়, জঙ্গল, জলাশয় ইত্যাদি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এডিস মশা মূলত এমন বস্তুর মধ্যে ডিম পাড়ে যেখানে স্বচ্ছ পানি জমে থাকে। তাই ফুলদানি, ডাবের খোসা, পরিত্যক্ত টায়ার ইত্যাদি সরিয়ে ফেলতে হবে বা সেখানে পানি যেন জমে থাকতে না পারে সেটা খেয়াল রাখতে হবে। সেই সাথে ব্যবহৃত জিনিস যেমন, মুখ খোলা পানির ট্যাংক, ফুলের টব ইত্যাদিতে যেন পানি জমে না থাকে, সে ব্যবস্থা করতে হবে।
এডিস মশা সাধারণত সকাল ও সন্ধ্যায় কামড়ায়। তবে অন্য সময়ও কামড়াতে পারে। তাই দিনে ঘরের চারদিকে দরজা জানালায় নেট লাগাতে হবে। দিনে ঘুমালে মশারি টাঙিয়ে অথবা কয়েল জ্বালিয়ে ঘুমাতে হবে।
সর্বদা মহান আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করতে থাকা এবং ডেঙ্গু হলে আতঙ্কিত না হয়ে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করা উচিত।
আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সকলকেই সঠিক বুঝের ভিত্তিতে ঈমান গ্রহণ এবং ইসলামের পথে চলার তৌফিক দিন, আমীন।

pbnews/Khan

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




পর্তুগাল বাংলানিউজ

প্রধান উপদেষ্টা: কাজল আহমেদ

পরিচালক: মোঃ কামাল হোসেন, মোঃ জহিরুল ইসলাম

প্রকাশক: মোঃ এনামুল হক

যোগাযোগ করুন

E-mail : portugalbanglanews24@gmail.com

Portugalbanglanews.com 2019
Developed by RKR BD